লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগের নেতা নির্বাচনে লিখিত পরীক্ষা ও ডোপ টেস্ট - খবরের অন্তরালে

জাতীয়

সর্বশেষ সংবাদ

Saturday, 19 October 2019

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগের নেতা নির্বাচনে লিখিত পরীক্ষা ও ডোপ টেস্ট



লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের ১৫টি ইউনিটের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় জেলা ছাত্রলীগ সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেছে। অক্টোবর ও নভেম্বর মাসজুড়ে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা হওয়ায় উজ্জীবিত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। নেতৃত্বে আসার জন্য সম্ভাব্য প্রার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে তাদের পদচারণা বাড়িয়েছে। ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশ ও মাদকাসক্তদের ঠেকাতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষা ও ডোপ টেস্টে উত্তীর্ণ হতে হবে।


১৭ অক্টোবর কমলনগর উপজেলা ও হাজিরহাট উপকূল সরকারি কলেজে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে ২৩ জন প্রার্থীকে লিখিত পরীক্ষা ও ডোপ টেস্টে অংশগ্রহণ করতে হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, ছাত্রলীগের ইতিহাস রোডস, স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস ও সমসাময়িক রাজনীতি বিষয়ে তাদের ৫০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হয়। সেই সঙ্গে দুটি ইউনিটের ২৩ প্রার্থীর ডোপ টেস্টও করা হয়।

আগামী ২০ অক্টোবর চন্দগঞ্জ থানা,  ২৯ অক্টোবর রায়পুর উপজেলা, রায়পুর পৌর সভা ও রায়পুর সরকারি কলেজ, ৭ নভেম্বর রামগঞ্জ উপজেলা, রামগঞ্জ পৌরসভা ও রামগঞ্জ সরকারি কলেজ, ১৪ নভেম্বর রামগতি পৌরসভা ও রামগতি সরকারি কলেজ, ২৪ নভেম্বর দত্তপাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ২৮ নভেম্বর লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা ও লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শরীফ জানান, ছাত্রলীগ মেধাবী ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে। দেশের ইতিহাস জানে এ ধরনের ছাত্র নেতৃত্ব নিশ্চিতের জন্য লিখিত পরীক্ষা। আর কোনো মাদকসেবী যেন কোনোভাবেই নেতৃত্বে আসতে না পারে, সে জন্য ডোপ টেস্ট নেওয়া হচ্ছে। লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগে যারা নেতৃত্ব দেবে তাদের হতে হবে মেধাবী ও মাদকমুক্ত।

লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এ কেএম সালাহ উদ্দিন জানান, জেলা ছাত্রলীগের এ পদক্ষেপের কারণে মাদকাসক্তরা ছাত্র নেতৃত্বে আসতে ব্যর্থ হবে।

যারা অনুপ্রবেশকারী তারাও আসতে পারবে না। যারা আওয়ামী পরিবারে সন্তান তারাই নেতৃত্বে আসবে। কারণ তারা বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামীগ সর্ম্পকে জানে তারাই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারবে।

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম ভুলু জানান, বর্তমান জেলা ছাত্রলীগ যে প্রক্রিয়ায় নেতৃত্ব নির্বাচন করছে এটা খুবই ভালো দিক। তবে এ প্রক্রিয়ায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের সমন্বয়ে করলে আরও ভালো হতো।

লক্ষ্মীপুর সচেতন নাগরিক কমিটির সদস্য গাজী গিয়াস উদ্দিন জানান, সম্প্রতি বুয়েট ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনায় ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগ যেভাবে নেতৃত্ব নির্বাচন করছে এটা দৃষ্টান্তমূলক। সারা দেশে এ পদ্ধতি গ্রহণ করলে ছাত্রলীগের আগামীর ছাত্র নেতৃত্ব মাদকমুক্ত ও মেধাবীবা থাকবে। 

সময় নিউজের সৌজন্যে।

No comments:

Post a Comment

Home