মশার ওষুধ কেনায়পদে পদে দুনীতি! ড. ইফতেখারুজ্জামান - খবরের অন্তরালে

জাতীয়

সর্বশেষ সংবাদ

Monday, 30 September 2019

মশার ওষুধ কেনায়পদে পদে দুনীতি! ড. ইফতেখারুজ্জামান

ঢাকার দুই সিটি করপােরেশনে
(ডিএনসিসি ও ডিএসসিসি) মশার
ওষুধ ক্রয়ে পদে পদে অনিয়ম ও
দুর্নীতি হয়েছে। অকার্যকর ওষুধ।
কেনায় ও ক্রয়নীতি অনুসরণ না
করায় এ পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে।
এ মন্তব্য করেছেন ট্রান্সপারেন্সি
ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ
(টিআইবি)-এর নির্বাহী পরিচালক
ড. ইফতেখারুজ্জামান।
গতকাল ঢাকা শহরের এডিস
মশা নিয়ন্ত্রণে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ
ও উত্তরণের উপায়' শীর্ষক
গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ
উপলক্ষে আয়ােজিত এক সংবাদ
সম্মেলনে
ইফতেখারুজ্জামান আরও বলেন,
উত্তরের কালাে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠান
থেকে ওষুধ নিয়েছে দক্ষিণ সিটি।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে কীটনাশক বাবদ
মােট ক্রয়ের প্রায় ৪০ শতাংশ টাকা।
আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। লােক দেখানাে।
অকার্যকর কার্যক্রম গ্রহণ এবং সিটি
করপােরেশনসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য
অংশীজনের মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের
সীমাবদ্ধতা, অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে।
সারা দেশে ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে।
রাজধানীর ধানমন্ডিতে মাইডাস
সেন্টারে অবস্থিত টিআইবির কেন্দ্রীয়
কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন আয়ােজন
করা হয়। এতে টিআইবির ডেপুটি
প্রােগ্রাম ম্যানেজার (গবেষণা ও পলিসি)
মাে. জুলকারনাইন ও মাে. মােস্তফা
কামাল গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন।
করেন। টিআইবির প্রতিবেদনে বলা হয়,
ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে পরিবেশগত ব্যবস্থাপনা,
জৈবিক ব্যবস্থাপনা, রাসায়নিক
নিয়ন্ত্রণ এবং যান্ত্রিক পদ্ধতির।
প্রয়ােজন হলেও শুধু রাসায়নিক
নিয়ন্ত্রণকে প্রাধান্য দিয়েছে দুই সিটি
করপােরেশন। মশা নিধনে লার্ভিসাইডিং
৮০ শতাংশ ও অ্যাড়াল্টিসাইডিং
৩০ শতাংশ কার্যকর হলেও লােক
দেখানাের জন্য লার্ভিসাইডিংকে
বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। কারণ।
এ কার্যক্রমে ক্রয়ের সুযােগ বেশি
এবং দুর্নীতির সুযােগ তৈরি হয়।

No comments:

Post a Comment

Home