বহিষ্কারের মর্মবেদনা। শাহাদাত হোসেন সেলিম - খবরের অন্তরালে

জাতীয়

সর্বশেষ সংবাদ

Tuesday, 25 June 2019

বহিষ্কারের মর্মবেদনা। শাহাদাত হোসেন সেলিম

৯১ সালে বিএনপি রাষ্ট্রপরিচালনার দায়িত্ব আসীন হয় অত্যন্ত সততা ও যোগ্যতার সাথে সে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় দেশের চারটি সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অপ্রত্যাশিতভাবে ঢাকা ও চট্টগ্রামে বিএনপির প্রার্থী পরাজিত হয় স্বভাবতই বিএনপির হাইকমান্ড এতে মারাত্মক ক্ষুব্ধ হয়ে পর্যালোচনা সভা আহবান করে। চট্টগ্রামের নির্বাচন পর্যালোচনা করে একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে পরের দিন ঢাকা নির্বাচন পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে মুলতবি করা হয় আজ অবধি সেই মুলতবি সভা অনুষ্ঠিত হয়নি।
চট্টগ্রামে নির্বাচন পর্যালোচনা করে বিবাদমান দুই গ্রুপ থেকে ৬ জন নেতাকে সম্পূর্ণ বিনা দোষে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে বহিষ্কার করা হয়। অত্যন্ত জনপ্রিয় দক্ষ সংগঠক কর্মী বান্ধব নেতা এডভোকেট বদরুল আনোয়ার একরামুল করিম রফিকুল ইসলাম খোকন কে বহিস্কার এর মধ্য দিয়ে যে গভীর ক্ষত সৃষ্টি হয় তা অদ্যবধি নিরসন হয়নি। মনে গভীর দুঃখ নিয়ে বদরুল আনোয়ার দেশান্তরী হন।

বাচ্চার জন্য দুধ কিনতে টাকা নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে এসে টাকা পরের দিন হরতালে বাজির জন্য কর্মীর হাতে দিয়ে বাচ্চার দুধ না কিনে খালি হাতে ফিরে যাওয়া মৃত্যুঞ্জয়ী নেতা একরামুল করিম আজ শুধু বিএনপি'র একজন শুভাকাঙ্ক্ষী। কিংবদন্তি ছাত্র নেতা রফিকুল ইসলাম খোকন এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সম্মুখ যুদ্ধা যার দুই পাটির দাঁত একটি একটি করে উপড়ে ফেলেছে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা যে কারণে কম শোনা সহ নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য মাঝেমধ্যে বিদেশে যায় রাজনীতিকে অভিশাপ দেয় আর দীর্ঘশ্বাস ফেলে সময় পার করে। রফিকুল ইসলাম খোকন এর মত আরো অনেকের দীর্ঘশ্বাস অভিশাপ হয়ে নিশ্চয়ই আমাদের কুরে কুরে খাচ্ছে। দোহাই লাগে আর অভিশাপ এর মাত্রা বৃদ্ধি করবেন না।
লেখক: শাহাদাত হোসেন সেলিম সাবেক চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বর্তমান লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব।

No comments:

Post a Comment

Home