পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত দিয়ে শুরু হল নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্ট অধিবেশন - খবরের অন্তরালে

জাতীয়

সর্বশেষ সংবাদ

Tuesday, 19 March 2019

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত দিয়ে শুরু হল নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্ট অধিবেশন

নিউজিল্যান্ডের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত হচ্ছে।


ক্রাইস্টচার্চ  মসজিদে হামলার পর প্রথমবার অধিবেশনে বসেছে নিউজিল্যান্ড পার্লামেন্ট।দেশটির নিয়মের ব্যতিক্রম ঘটে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয় এবারের অধিবেশন। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী পার্লামেন্টে তার ভাষণে  হামলায় হতাহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও একাত্মতা প্রকাশ করেন। একই সাথে হামলাকারী কে বাধা দিতে গিয়ে নিহত নাঈম রশিদের আত্মত্যাগের বিষয়টিও স্মরণ করেন।

পার্লামেন্ট ভাষণ এই নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন এ ঘটনার শিকার ব্যক্তি ও পরিবার গুলো অবশ্যই ন্যায়বিচার পাবে। অবশ্য তিনি পুরো ভাষণে কোথাও হামলা কারীর নাম প্রকাশ করেননি। শুক্রবার প্রথমে হামলাকারী আল নূর মসজিদে পরে লিন উড মসজিদে হামলা চালায় এ সময় দুই মসজিদে ৫০ জন মারা যায়। তবে কয়েক জন মুসল্লির সাহসিকতার কারণে হামলা চালানো বন্ধ করে ফিরে যায় বন্দুকধারী।না হলে হয়তো হতাহতের পরিমাণ আরো অনেক বাড়তে পারত। নিহতদের বেশিরভাগ নাগরিক পাকিস্তান বাংলাদেশ ভারত তুরস্ক কুয়েত ও সোমালিয়ার।
সূত্র: এক্সপ্রেস ট্রিবিউন

নিউজিল্যান্ডে গত শুক্রবার জুমার নামাজে মসজিদে হামলায় গোটা বিশ্ব স্তব্ধ-স্তম্ভিত। নিউজিল্যান্ডের মতো শান্তি প্রিয় একটি দেশে এরকম ন্যাক্কারজনক সন্ত্রাসী হামলা কেউ মেনে নিতে পারছেন না। এই ঘটনায় গোটা বিশ্ব নিউজিল্যান্ডের পাশে দাঁড়িয়েছে।
মুসলমানদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা।

তবে মুসলমানদের জন্য নিউজিল্যান্ডবাসীর শোক প্রকাশের বিষয়টি সত্যিই সবার মনে নাড়া দিয়েছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে উচ্চপদস্থ পুলিশ অফিসার সহকারী কর্মকর্তা সর্বোপরি দেশটির জনসাধারণ শোকে স্তব্ধ। গটা নিউজিল্যান্ডকে নাড়িয়ে দিয়েছে এমন ন্যক্কারজনক সন্ত্রাসী হামলা।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা বারবার গণমাধ্যমের সামনে এসে নিজেই তথ্য জানাতে দেখা গেছে। সংবাদ সম্মেলন থেকে শুরু করে আহতদের দেখতে যাওয়া তাদের খোঁজ খবর নেয়া সবখানেই নিজেই যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। যেখানেই যাচ্ছেন যার সঙ্গে কথা বলছেন সবখানেই তাকে বিমর্ষ দেখা গেছে।
শোক প্রকাশের জন্য শুধু কালো পোশাক পরেননি মসজিদে নামাজ রত মুসলিমদের হামলার ঘটনায় নিউজিল্যান্ডের মুসলিমদের প্রতি একাত্মতা প্রকাশে মাথায় ওড়না পরিধান করেছেন ৩৮ বছর বয়সী নারী প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা।
নিহতদের আত্মীয় কে বুকে জড়িয়ে ধরলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধান মন্ত্রীর আচরণ আর চেহারার অভিব্যক্তি বোঝা যাচ্ছে শোক শুধু তার বক্তব্য নেই ভয়াবহ হামলার তার মনেও আঘাত হেনেছে। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর এমন কিছু ছবি ঘুরে বেড়াচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমগুলোতে। এগুলোর মধ্যে কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে কালো পোশাকের সঙ্গে কালো ওড়না মাথায় জড়িয়ে দাঁড়িয়ে আছেন প্রধানমন্ত্রী। করুন দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন চল চল চোখ। যেন নিকটতম কোন স্বজন এর মৃত্যুতে শোকে হৃদয় ভারাক্রান্ত। দেখে মনে হচ্ছে এখনি কেঁদে ফেলবেন। কিন্তু দুই হাত এক সঙ্গে শক্ত করে মুষ্টিবদ্ধ করে রেখেছেন তিনি। যেন দেশের এই ভয়ানক সুখের দিনে নিজেকে শক্ত রাখার চেষ্টা করেছেন।
প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা কালো পোশাকে

প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা তার পোশাকের মধ্য দিয়ে দেশের শোকাহত মুসলিম জনগোষ্ঠীর সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন। ছবিতে তার দাঁড়ানোর ভঙ্গি আর চোখের দৃষ্টি মনকে নাড়িয়ে দেওয়ার মতো। এই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে অনেকেই বলেছেন প্রধানমন্ত্রী যেন এর মধ্য দিয়ে শুধু নিজের শোক নয় পুরো দেশের শোক কে তুলে ধরেছেন। অন্য আরেকটি ছবিতে প্রধানমন্ত্রীকে মুসলিমদের উদ্দেশ্যে কথা বলতে দেখা গেছে। সেখানেও তাকে দেখে মনে হবে যেন তার ওই কোন প্রিয় আত্মীয় মৃত্যুতে তিনি শোকাহত ব্যতীত মন নিয়ে বসে আছেন।

এক বার্তায় তিনি বলেছেন এটি আমাদের দেশের জন্য বিশাল এক শোক এর ঘটনা আপনারাই আমরা আর তাই যা ঘটেছে তার কষ্ট আমরা গভীর ভাবে অনুভব করতে পারছি।
সংবাদ সূত্র: দৈনিক নয়াদিগন্ত

No comments:

Post a Comment

Home