ঘুরে আসুন খানজাহান আলীর মাজার ষাট গম্বুজ মসজিদ মংলা সমুদ্র বন্দর ও সুন্দরবন - খবরের অন্তরালে

জাতীয়

সর্বশেষ সংবাদ

Saturday, 9 March 2019

ঘুরে আসুন খানজাহান আলীর মাজার ষাট গম্বুজ মসজিদ মংলা সমুদ্র বন্দর ও সুন্দরবন

পাঠকের কলাম এ খুলনা বাগেরহাট মংলা সমুদ্র বন্দর খানজাহান আলীর মাজার ষাট গম্বুজ মসজিদ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করছেন একজন পাঠক।

মোঃ হাবিবুর রহমান ও মোহাম্মদ ইসমাইল দুই বন্ধু মিলে রওনা হলেন খুলনার উদ্দেশ্যে। লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলা থেকে তাহারা রওনা করলেন পার্শ্ববর্তী উপজেলা ফরিদগঞ্জ এর উদ্দেশ্যে।

ফরিদগঞ্জ হরিনাঘাট পার হয়ে হাইওয়ে ধরে যেতে লাগলেন খুলনার উদ্দেশ্যে। প্রথমে তাহারা গেলেন বাগেরহাটের ঐতিহাসিক খানজাহান আলীর মাজার এবং ষাট গম্বুজ মসজিদ পরিদর্শনে।

খানজাহান আলীর মাজার জিয়ারত শেষ করে দুই বন্ধু ষাট গম্বুজ মসজিদ পরিদর্শন করলেন এবং পাশে থাকা বিশাল দিঘিতে কুমিরদের দেখলেন।

মাজারের পাশে থাকা মিনি মিউজিয়ামে দিঘিতে থাকা সাবেক কুমিরদের মমি পরিদর্শন করলেন।
খানজাহান আলীর মাজার এবং ষাট গম্বুজ মসজিদ পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন। অসাধারণ সৌন্দর্য মসজিদটি, মসজিদের ভিতরের গম্বুজগুলো সম্পন্ন ইটের তৈরি যা দেখে অবাক হতে হয় এত বড় মসজিদ তাও আবার ইটের তৈরি অসাধারণ।


বাগেরহাট সফর শেষ করে তারা মংলার দিকে রওনা হলেন। মংলা সমুদ্র বন্দর পরিদর্শন করেন দুই বন্ধু তারপর জান সুন্দরবন অবলোকন করার জন্য।
সুন্দরবন আসলেই যে সুন্দর তা নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন পাকৃতিক ভাবে গড়ে ওঠা সুন্দর বনে নানা প্রজাতির জীবজন্তু এবং নদীতে অসংখ্য প্রজাতির মাছ দেখে আমরা অভিভূত।পাশে থাকা হরিণের অভয়ারণ্য নিজ চোখে দেখলাম। সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর খানজাহান আলীর মাজার ষাট গম্বুজ মসজিদ পরিদর্শন করে দুই বন্ধু বললেন আমাদের সফর সফল এবং সার্থক হয়েছে আজকে আমরা বাংলাদেশের অপার সৌন্দর্যের জায়গা পরিদর্শন করে আসলাম।

পাঠকদের উদ্দেশ্যে তাহারা বললেন প্রত্যেকটি মানুষের উচিত বাংলাদেশের পর্যটন এলাকাগুলো পরিদর্শন করা এবং বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে তুলে ধরা।
এছাড়া দুই বন্ধু কিছু সমস্যার কথা বললেন তার মধ্যে হচ্ছে ওই অঞ্চলে খাওয়া-দাওয়ার মান তেমন ভালো নয়। একটা পর্যটন নগরী হিসেবে ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য তেমন কোন হোটেল মোটেল নেই। ভালো মানের খাবারের জন্য নেই কোন রেস্তোরা।

বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন এর উচিত হবে সুন্দরবন বাগেরহাট মংলা এসব অঞ্চলে যারা ঘুরতে যান তারা যেন মানসম্পন্ন থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা পান সে ব্যবস্থা করা।

No comments:

Post a Comment

Home