রামগঞ্জে পাঁচ কোটি টাকা নিয়ে ডেভলপমেন্ট কোম্পানি উধাও! - খবরের অন্তরালে

জাতীয়

সর্বশেষ সংবাদ

Saturday, 16 March 2019

রামগঞ্জে পাঁচ কোটি টাকা নিয়ে ডেভলপমেন্ট কোম্পানি উধাও!

লক্ষীপুরের রামগঞ্জে পাঁচ কোটি টাকা নিয়ে ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি উধাও!
নির্মাণাধীন জনতা টাওয়ার রামগঞ্জ

রামগঞ্জ ও জনতার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি নামের একটি প্রতিষ্ঠান পাঁচ কোটি টাকার সম্পদ ও নগদ টাকা লগ্নি করে পালিয়েছে।এতে করে পথে বসার উপক্রম হয়েছে জেলার রামগঞ্জ শহরের অর্ধশত ব্যবসায়ী চাকরিজীবী ও প্রবাসীর পরিবার।

ফার্মের মালিক সাড়ে সাত বছরে দশ তলা মার্কেট নির্মাণ শেষ করার চুক্তিবদ্ধ হলেও দীর্ঘ নয় বছর কাজ শেষ না করে কোটি কোটি টাকা নিয়ে গান টাকা দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ করেছেন কয়েকজন ক্ষতিগ্রস্ত ভূমির মালিক।

রামগঞ্জে শহরের প্রাণকেন্দ্র জনতা ইউনিট দেওয়ার নামে দশতলা ভবন নির্মাণে তাকাও সম্পদ নিয়ে ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে ভুক্তভোগীদের মধ্যে। ব্যাংকের ঋণের বোঝা ও ধার করা টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে অনেকেই এখন সর্বস্বান্ত হয়েছেন।

ভুক্তভোগী লুৎফুর রহমান মাষ্টার তোফাজ্জল হোসেন ফিরোজ আলম ফেরদৌসী বেগম সহ ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকগণ জানান ২০১০ সালের রামগঞ্জ থানা সংলগ্ন রতনপুর মৌজার বিভিন্ন দাগে স্থানীয় ১৩ জন ব্যবসায়ী দশ তলা মার্কেট নির্মাণে ঢাকার গুলশান জনতা ডেভলপমেন্ট এন্ড টেকনোলজিস নামের একটি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী রহমান মানিকের সাথে পাওয়ার অব অ্যাটর্নির মাধ্যমে চুক্তিবদ্ধ হয়। চুক্তি অনুযায়ী সাড়ে চার বছরে উত্তম মার্কেটের নির্মান কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ফার্মের মালিক গত ৯ বছরে নানান তালবাহানা তিনতলার নির্মাণ কাজ অসম্পূর্ণ রেখে এবং ৫৫/৬০ জন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের নিকট থেকে কোম্পানির মালিক উচ্চমূল্যে দোকান বিক্রি করেও দোকানগুলি বুঝিয়ে না দিয়ে বর্তমানে গা ঢাকা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ব্যক্তিগণ।

  এছাড়াও একই দোকান কয়েকজনের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার প্রকৃত মালিকগণ দোকানগুলো দখলে নিতে পারছে না। রোমান হোসেন পাটোয়ারী আব্দুল হান্নান ফরহাদ আহ্মেদ সহব ভূমি মালিকগণ জানান সংশ্লিষ্ট বিষয়ে গত কয়েক বছরে উক্ত প্রতিষ্ঠানের মালিক কে আইনি নোটিশ দেওয়া হলেও তার পক্ষ থেকে আশানুরূপ সাড়া পাওয়া যায়নি। চুক্তি মতে ভূমি মালিকদের প্রাপ্য অংশ বুঝিয়ে না দেওয়ায় চরম ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে ভূমি মালিকগণ জনতা ডেভলপমেন্ট এন্ড টেকনোলজিস এর নির্মাণাধীন তৃতীয় তলা পর্যন্ত অসম্পূর্ণ কাজ করতে কত টাকা প্রয়োজন এই মর্মে একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে হিসাব চাইলে উক্ত প্রতিষ্ঠান সার্ভে করে প্রায় এক কোটি ১৭ লাখ টাকা প্রয়োজন বলে হিসাব প্রদান করেন।

এছাড়াও চুক্তিমতে ভূমি মালিকদের প্রাপ্য অংশ বুঝিয়ে না দেয়ায় চরম ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে।
এ ব্যাপারে জনতা ডেভলপমেন্ট এন্ড টেকনোলজিস নামের কনস্ট্রাকশন ফার্ম এর স্বত্বাধিকারী শামসুর রহমান মানিক টেলিফোনে মালিকপক্ষের রিয়েল এস্টেট বিষয়ে ধারণা না থাকায় তারা অনেক কথাই বলতে পারে।

এছাড়া জমি মালিকদের জমি নিস্কন্টক নাই। প্রায়  ৩ কোটি অতিরিক্ত খরছ করার কারনে ডিজাইন কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। ব্রোকারের মাধ্যমে দোকান বিক্রির কারনেও দুই একটা দোকান নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে।

No comments:

Post a Comment

Home